অনলাইন আয় এর সম্ভাব্য সব গুলো পদ্ধতির বিস্তারিত এবার বেকারত্ব থেকে পান চীর মুক্তি

0
235
ফ্রিল্যান্সিং
ফ্রিল্যান্সিং

অনলাইনে ইনকাম বা অনলাইন আয় বিষয়ে যদি বলতে হয় তাহলে সবার আগে মাথায় আসে ওডেস্ক এর কথা যা বর্তমানের নাম হচ্ছে আপওয়ার্ক এবং আসে বিশেষ কয়টি মাধ্যম যেমন ফ্রীল্যান্সার, গুরু ইত্যাদি ইত্যাদি। হুম এগুলো অনলাইনে আর্নিং জগতে সেরা কিছু মাধ্যম ঠিকই তদ্রুপ এগুলো উপর লেভেলের স্কিল প্রাপ্তদের জন্য। সাধারণ লোকদের কাজ পাওয়ার সম্ভনা খুব কম। আর যদিও বাই এনি চান্স দিল করে আশার আলো দেখেন ও তাও শেষ পর্যন্ত কাজ সমাপ্ত করা অনেক কষ্টসাধ্য। এইসকল প্লাটফর্ম গুলোতে কাজ না পাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে এইসকল জায়গাতে ক্লাইন্টের তুলনায় ওয়ার্কার প্রচুর পরিমানে। মাঝে মধ্যে ক্লাইন্ট ও হিমশিম খায় যে কাজ কাকে রেখে কাকে দিব। কিন্তু বুদ্ধিমান লোক সব যায়গাতে পার্ফেক্ট। আপনি যদি একটু অনলাইন কেন্দ্রিক হোন তাহলে অনেক দ্রুত কাজ পাওয়া সম্ভব। কিছু সহজ ট্রক্স আছে যার মাদ্ধমে আপনি অতি সত্বর কাজ পেরে পারেন। শিখিয়ে দিব ইনশাআল্লাহ্‌ কিন্তু ধৈর্যের সহিত সাথেয় থাকতে হবে এবং চোখ রাখতে হবে পরবর্তী পোস্ট সমূহে। আজকের পোস্ট মূলত স্টারটার প্লান অর্থাৎ যে কেউ ইনকাম করতে পারবেন অনলাইন থেকে এবং ১০০% ট্রাস্ট সোর্স থেকে যার মাধ্যমে অর্থ ইনকাম হবে অতি সহজে। পোস্টটি মন দিয়ে পড়লে এবং বুদ্ধি খাটাতে পারলে যে কেউ পারবে অনলাইনে ইনকাম করতে। সহজ উপয়ে অধিক ইঙ্কামের মাধ্যম এর থেকে বেশি হতেই পারে না। তাহলে বেশি কথা না বলে শুরু করা যাক। আপনি কি খুজছেন অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে অনলাইন আয় করা সসম্ভব? আপনি কি এর আগে অনলাইনে ইনকাম করতে চেয়েছিলেন কিন্তু সফল হতে পারেন নি? তাহলে চিন্তা করবেন না কারণ আমরা এর আগে অনেক লোকদেরকে ট্রেইনিং দিয়েছি এবং এর মধ্যে অনেকে ইনকাম করতে সফল ও হয়েছে। আমি আপনাদের কিছু উত্তম মাধ্যম শিখাব যার ফলে অতি সহজে আপনিও অনলাইনে ইনকাম করতে সক্ষম হবেন।

এবের অনলাইন আয় করুন, ইনকামের সহজতর ইন্টারনেট পদ্ধতি সমূহ

১) পিটিসি সাইট থেকে ইনকাম করুন

পিটিসি সাইট থেকে অনলাইন আয়

আপনি যদি অনেক সহজে অনলাইন থেকে অল্প অনলাইন আয় করতে চান তাহলে পিটিসি সাইত হবে আপনার জন্য অন্যতম। আপনি যদি ভালো পিটিসি নিয়ন্ত্রন করতে পারেন তাহলে আপনি প্রতি মাসে মিনিমাম উর্ধে ২০০ ডলার ইনকাম করতে পারেন। একাহ্নে আপনাদের তেমন কিছুই করতে হবে না। শুধু মাত্র কিছু এডভার্টাইস এর ক্লিক করতে হবে এবং সেগুল ১০ বা ৩০ সেকেন্ড ভিউ করতে হবে। প্রতি ভিউ করলেই পাবেন নির্দ্রিষট পরিমানে অর্থ। পিটিসি জগতে অনেক সাইট রয়েছে যেখান থেকে আপনি চাইলেই প্রচুর পরিমানে ইনকাম করতে পারেন। কিন্তু এগুলো মধ্যে বেশির ভাগ বিশ্বাস যোগ্য নয়। তাই দেখে বুঝে বিশ্বাসযোগ্য সাইট নির্বাচন করুন। যুগটেকে পিটিসি সাইট নিয়ে অনেক পোস্ট পাবেন সময় নিয়ে বুঝে শুনে পড়লে অতি সহজেই ইনকাম করতে পারবেন। এখানে আমার আগেই অনেকে অনেক টিপস দিয়েছে কিভাবে অতি সহজে এসকল মাধ্যম থেকে অনলাইন আয় করা সম্ভব। পাঁচটি অতি বিশ্বাসযোগ্য পিটিসি সাইট হচ্ছেঃ- ক্লিক্সসেন্স (http://www.clixsense.com/),  ট্রাফিক মনসুন (https://trafficmonsoon.com), পেইড ভার্টস (https://www.paidverts.com/), নিউবাক্স (https://www.neobux.com), বাক্সপি (http://buxp.org) এই সকল মাধ্যম থেকে অতি সহজে আপনি চাইলে ইনকাম করতে পারেন। শুধু এড রিভিউ করে। আরো অনেক অপ্সন পাবেন ইনকাম করার এখন শুধু সাইন আপ করুন এবং শুরু করুন।

২) আর্ন অরুন জিপিটি সাইট থেকে

আর্ন অরুন জিপিটি সাইট থেকে

আরো ইনকাম করতে আপনি জয়েন করতে পারেন জিপিটি সাইট সমূহে। এসকল সাইট থেকে আপনি করতে করতে পারেন কেবল ভিসিট করে, ভিডিও দেখে, গেমস খেলে এবং অনেক অপ্সন পাবেন যা অতি সহজেই ইনকাম করার সর্বোত্তম মাধ্যম হতে পারে। অনেক জিপিটি সাইট আছে। কিন্তু আমি এখানে মাত্র পাঁচটি সাইট এর কথা উল্লেখ করবো। কারণ এরা যথা সময়ে এবং সঠিক মাধ্যমে পেমেন্ট দেয়। আপনি আপনার অর্জিত অর্থ পেতে পারেন পেয়পাল, চেক  অথবা ব্যাংক ট্রান্সফার এর মাধ্যমে। উল্লেখযোগ্য কিছু জিপিটি সাইট হলো ইনবক্স ডলার (http://www.inboxdollars.com),  ক্যাশক্রেট (http://www.cashcrate.com/), স্বওয়াগবাক্স (http://www.swagbucks.com), ক্লিক্সসেন্স (http://www.clixsense.com/), ট্রেসানট্রপার (https://www.treasuretrooper.com/) এখনি জয়েন করুন এবং শুরু করুন আর্নিং।ক্যাপচা সল্ভিং করেও আপনি অনলাইন আয়

৩) ক্যাপচা সল্ভিং করেও আপনি অনলাইন আয় করতে পারেন কাঙ্খিত অর্থ

ক্যাপচা সল্ভিং করে আয়

আপনার অনলাইনে ইনকাম খাতে অনেক সময় থাকে তাহলে আপনি করতে পারেন ক্যাপচা সল্ভ করার কাজটি। অতি সহজ কিন্তু সময় সাপেক্ষ একটি কাজ। এই প্রক্রিয়ায় আপনি ক্যাপচা দেখবেন এবং সেই ক্যাপচা গুলো টেক্সট আকারে সমাধান করবেন। এই খাতে আপনার সব থেকে বেশি  প্রয়োজন টাইপিং স্পীড। আপনার টাইপিং স্পীড যত বেশি হবে আপনি তত বেশি পরিমানে অনলাইন আয় করতে সক্ষম হবেন। আপনি প্রতি ১০০০ ক্যাপচা সল্ভ করলে আপনি ২ ডলার এর অধিক ইনকাম করতে পারবেন। এখানে ক্যাপচা সল্ভিং সাইটের বিশেষ ১০টি তুলে ধরা হলো। join Kolotibablo here, Join MegaTypers here, CaptchaTypers software, Join ProTypers Free, signup Captcha2Cahsh here. Signup 2Captcha here, download the Qlink Group software from this link, Visit the site here & signup, refer this link, pixprofit.com ক্যাপচা সল্ভিং আপনাকে অনেক বেশি ইনকাম দিতে পারবে না কিন্তু কথায় আছে না নাই মামার থেকে কানা মামা অনেক ভালো

৪) অর্থ ইনকাম করুন সহজ সার্ভের মাধ্যমে

আপনি টাকা ইনকাম করতে পারেন মাত্র ৫-৩০ মিনিটের মাধ্যমে। আপনার শুধু প্রয়োজন একটু চেষ্টার। কোম্পানির উপর ডিপেন্ড করবে আপনার কতক্ষন স্টেয় করে সার্ভেয় কমপ্লিট করতে হবে। আপনার সার্ভেয় করার পর ফিডব্যাক এবং অপিনিয়ন লিখতে হবে। মোট কথা আপনি কিভাবে ভিসিট করলে করার পরে কি দেখেলেন ভালো মন্দ প্রায় সব কিছুই নিয়ে সার্ভেয় গঠিত। অনেক ক্ষেত্রে মাত্র কিছু প্রশ্ন সিলেকশনের মাধ্যমে সার্ভেয় কমপ্লিট করা সম্ভব। অতি সহজ একটি কাজ। আপনি ইনকাম করতে পারেন ১-২০ ডলার যা আপনার সার্ভে, প্রফাইল ও সমইয়ের উপর নির্ভর করবে। এবং এটি আপনার দেশের উপর ডিপেন্ড করবে আপনি কতটা পেয়িং এর যোগ্য। এখানে বিশটি সার্ভেয় সাইট এর উল্লেখ করা হলো

  1. Star Panel
  2. iPanelOnline India
  3. SurveyHead
  4. Toluna India
  5. PanelPlace
  6. IndiaSpeaks
  7. Brand Institute
  8. PermissionResearch
  9. Planet Pulse
  10. SurveySavvy
  11. Spider Metrix
  12. GlobalTestMarket
  13. ValuedOpinions India
  14. The Panel Station
  15. YourSay
  16. NPDOR
  17. PlanetPanel
  18. The Harris Poll Online
  19. Socratic Forum
  20. MixReq

৫) এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং হতে পারে আপনার অনলাইনে ইঙ্কামের অনেক বড় একটি মাধ্যম

Affiliate Marketing Green Blue Banner

আপনি যদি অনলাইন ইনকাম করার প্রতি অনেক সিরিয়াস হোন এবগ আপনি যদি অনেক কঠিন পরিশ্রমী হন তাহলে এটি হতে পারে প্নার অন্যম মাধ্যম। এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং অনলাইনের এই যুগে এতটা প্রসারিত যে আপনি তা ব্যপ্তি কল্পনাও করতে পারেবন না। বর্তমান সময়ে অনেক বেড়ে ওঠা প্রোগ্রাম এটি। এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং  এর অনেক সাইট রয়েছে হিসেব করলে প্রায় ১০০ এর বেশি। যেখানে আপনি জইন করে এবং তাদের প্রোডাক্ট প্রমট করে ইনকাম করতে পারবেন। Flipkart, Amazon, eBay, Clickbank, CJ এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং এর অন্যতম নাম। এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং এর  মাধ্যমে আপনি চাইলেই ইনকাম করতে পারেন প্রচুর। কিন্তু এর জন্য আপনার করতে হবে অনেক সাধনা। কিন্তু একটু চেষ্টা করলে আপনি হতে পারেন এই খাতের কিং এবং ইনকাম করতে পারেন অনেক অর্থ। এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং করে প্রতি প্রোডাক্টে ৪% থেকে ২০% পর্যন্ত কমিশন পেতে পারেন। আরো জানতে চোখ রাখুন যুগটেক এ এবং রিতিমত ভিসিট করুন https://www.zugtech.com/author/alam-hossain/

৬) ফ্রীল্যান্সার হয়ে এবং ফ্রীল্যান্সিং করেও আপনি অনলাইন আয় করতে পারেন

ফ্রীল্যান্সার এবং ফ্রীল্যান্সিং

ফ্রীল্যান্সিং অনেক পপুলার একটি মাধ্যম ইনকাম করার। এফিলিয়েন্ট মার্কেটিং এবং এডসেন্স এর পর এর অবদান অনেক। একজন ফ্রীল্যান্সার হিসেবে আমি বলতে পারি আপনি চাইলেই যেকোন বড় অথবা ছোট কোম্পানির সাথে যুক্ত হতে পারেন এবং কাজ করতে পারেন টেম্পোরারি অথবা বেসিক ওয়েতে। একজন ফ্রীল্যান্সার চাইলেই প্রতি মাসে নুন্যতম ৫০০ ডলার থেকে ২০০০ পর্যন্ত আর্ন করতে পারেন। এটা ডিপেন্ড করে আপনি কোন ধরনের স্কিলের উপর পারদর্শী। আপনি কন্টেন্ট রাইটার, ওয়েব ডিজাইনার, গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে পারেন এবং সার্ভিস প্রভাইড করতে পারেন যেমনঃ- এসইও, ডাটা এন্ট্রি এবং অনেক কিছু। ডজনের বেশি ফ্রীলুয়ান্সিং এর পপুলার ওয়েবসাইট রয়েছে। এগুলো হোল  Elance, Freelancer.in, WorkNHire, Upwork,People per Hour ইত্যাদি। এগুলো আপনাকে দিতে সক্ষম রেডি প্লাটফর্মের সাথে রেডি ক্লাইন্ট।

৭) রাইটিং জব বা লিখে উপার্জন

রাইটিং জব বা লিখে উপার্জন

ইন্টারনেট অনলাইন আয় করার অতি জনিপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে রাইটিং। আপনি চাইলে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জন্য কন্টেন্ট লিখে অনলাইন আয় করতে  পারেন। আপনি লিখতে পারেন ব্লগের জন্য কোম্পানির জন্য, প্রতিষ্ঠান জন্য, ব্যক্তি বিশেষের জন্য লিখে নির্দিষ্ট পরিমানে অনলাইন আয় করতে পারেন। বিভিন্ন ধরনের মানুষ বিভিন্ন ধরনের জিনিস লিপিবদ্ধ করে বিভিন্ন ক্যাটাগরির অর্থ উপার্জন  করতে পারেন। সাধারণ মানুষ ৫০০ ওয়ার্ডের অধিক কনটেন্ট লিখে ৫ ডলারের বেশি অনলাইন আয় করতে পারেন। আপনি iWriter, WriterBay, FreelanceWriting, TextBroker, ExpressWriters.com, FreelanceWritingGigs.com এই সকল সাইটে যুক্ত হয়ে রাইটিং স্কিল অনুসারে আর্ন করতে পারেন।

৮) ওয়েব ডিজাইন হতে পারে ইনকামের উৎস

ওয়েব ডিজাইন

আপনার যদি কোন আইডিয়া থাকে ওয়েব ডিজানিং অথবা ওয়েব ডেভলপিং এর উপর তাহলে আপনি বিভিন্ন কাস্টমারদের কাছ থেকে অর্ডার নিয়ে এখনি কাজে নেমে পরতে পারেন। যদি আপনার কোন আইডিয়ে না থাকে তাহলে আইডিয়া অর্জন করু এবং নেমে পরুন এই খাতে। কারণ এই খাত হচ্ছে অনলাইনে ইনকামের সর্বচ্চ শক্তিশালী খাত। আপনি কাঙ্ক্ষিত ল্যাঙ্গুয়েজের উপর এক্সপার্ট হলে আপনি পেরে পারেন সর্বচ্চ মূল্যের কাজ। আপনি কাস্টমার আনতে প্রচার করুন অফলাইনে অথবা নিজে ওয়েবসাইট খুলে অনলাইনে।

৯) এসইও করে অনলাইন আয়

এসইও করে আয়

অনলাইন বিজনেস এর সব থেকে জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে এই এসইও । আপনি যদি এসইও এর উপর পারদর্শী হোন তাহলে অনলাইন ইনকামের জন্য একদমি চিন্তা করার কোন কারণ নেই। বিভিন্ন কোম্পানি এই খাতে তাদের বিজনেস কীওয়ার্ডকে তুলে ধরতে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার খরচ করে। তাদের সব থেকে বড় টার্গেট থাকে কীওয়ার্ড অনুসারে বিজনেস পাবলিকের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া। এই ট্রেইনিং নেতে আপনার ভালো মাধ্যমের সাথে যোগাযোগ থাকতে হবে। যেখানে আপনি বাস্তবিক ভাবে এসইও করা শিখবেন এবং তা ব্যক্তিগত ভাবে কাজে লাগাতে পারবেন। অনেক পপুলার সাইট আছে যেখান থেকে আপনি এসইও শিখতে পারবেন।

১০) মাইক্রোওয়ার্কিং

মাইক্রোওয়ার্কিং

আপনি যদি সিম্পল ভাবে অনলাইন থেক ইনকাম করতে চান এবং ইনকাম করতে আপনি বেশি পরিশ্রম না করতে চান তাহলে আপনার জন্য মাইক্রোওয়ার্কিং সব থেকে বড় একটি প্লাটফর্ম। আপনি এই খাত থেকে ২০০-৩০০ ডলারের বেশি অনলাইন আয় করতে পারেন। এখানে আপনি অর্পিত কাজ কমপ্লিট করে অনলাইন আয় করতে পারেন। অবজেক্ট আইডেন্টিফাই করে, বিভিন্ন প্রোডাক্ট রেট করে, আর্টিকেল, পোস্ট ইতাদিতে কমেন্ট করে, টাস্কে প্রদত্ত ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিসিট করে, প্রদত্ত কন্টাক্টের ডিটেইলস গেদার করে। ছোট খাট রিসার্স করে এবং পাশা পাশি ছোট আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনি অনলাইন আয় করতে পারেন। মাইক্রোওয়ার্কিং করার জন্য রয়েছে অনেক সাইট এর মধ্যে জনপ্রিয় কিছু মাধ্যম হচ্ছে mTurk, MicroWorker, SEOClerk, ClickWorker, GigWalk ইত্যাদি। 

১১) ফাইভারে বিক্রেতা হিসেবে আয় করতে পারেন

ফাইভারে বিক্রেতা হিসেবে আয়

ফাইভার এমন এক যায়গায় যেখানে আপনি নুন্যতম ৫ ডলারের কাজ করতে পারেন। ফাভারে ভিসিট করুন এবং দেখুন কি ধরনের কাজ আপনি করতে চান। আপনি ফাইভারে যোগদান করুন একজন সেলার হিসেবে এবং মানুষ যোগাড় করুন।প্রতিদিন যদি একাটি গিগ কমপ্লিট করতে পারেন তাহলে আপনি প্রতি মাসে নুন্যতম ১৫০ ডলার ইনকাম করতে পারেন।

১২) ইউটিউব চ্যানেল আয়ের এক অন্যতম উৎস

ইউটিউব চ্যানেল

আপনি যেখানে জান যাই বা করেন পাশে রাখুন একি ক্যামেরা। হ্যাঁ ক্যামেরা হতে পারে আয়ের অন্যতম উৎস। আমাদের দেশে ইউটিউবের মাধ্যমে অনলাইন আয় করেন এরকম অনেক সেলিব্রেটি রয়েছেন যাদের এক লম্বা লিস্ট দাঁর করানো যায়। একেতো আপনি ইনকাম করতে পারেন তার পাশা পাশি কোয়ালিটি ভিডিও পোস্ট করলে আপনি হতে পারেন ইউটিউব সেলিব্রেটি। অনলাইনে ফেসবুক এর পিছনে সময় অকাজে নষ্ট না করে আপনি অনলাইন আয় করতে পারেন অনেক অর্থ। ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে আপনি হতে পারেন ইউটিউব পার্টনার YouTube partner আপনার আপলোডক্রিত ভিডিওর প্রত্যেকটি ভিউতে আপনি অনলাইন আয় করতে পারেন। যদি আপনার ভিডিও কোন কারনে ভাইরাল হয়ে যায় তাহলে আপনার ইনকামের মাত্রা হতে পারে অভাবনীয়।

১৩) ডমেইন ট্রেডিং এর মাধ্যমে ইনকাম

ডমেইন ট্রেডিং

ডমেইন ট্রেডিং হচ্ছে উচ্চ ইনকামের আরেকটি সহজ পথ। কিন্তু এখানে আপনার প্রয়োজন কিছু ইনভেস্টমেন্টের কারণ এখানে আপনাকে ডমেইল ক্রয় করতে হবে। এই ক্ষেত্রে আপনাকে এক্সপার্ট হতে হবে অথবা আপনার যথেষ্ট জ্ঞান থাকতে হবে। আপনি GoDaddy থেকে ১০ ডলার থেকেও কম মূল্যে ডমেইন কিনতে পারেন এবং প্রয়োজনের সময় বিভিন্ন মাধ্যমকে ১০০ ডলার থেকেও বেশি দামে বিক্রি করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার মনে রাখতে হবে এমন ডমেইল নেম যা এখন কেনা হয়নি কিন্তু ভবিষ্যতে কোন কোম্পানির এর অধিক চাহিদা অনুভূতি হতে পারে। তারা কেনার চেষ্টা করতে পারে আপনার ক্রয় ক্রিত উক্ত ডমেইনটি। যেখানে কোম্পানি ডমেইন নেমটি কিনতে চাবে কিন্তু দেখবে সেটি অলরেডি কেনা হয়ে গেছে। তারা আপনার সাথে যোগাযোগ করবে এবং ডমেইন কনট্রোল যেহেতু আপনার হাতে আপনি চাইলে যেকন পরিমানের অর্থ তাদের কাছ থেকে আদায় করে নিতে পারেন। আপনি আপনার ডমেইন নিলামে তুলতে পারেন যার ফলে আপনি আপনার সঠিক দামটি পান।

১৪) ওয়েবসাইট ফ্লিপ্পিং করে অনলাইন আয়

ওয়েবসাইট ফ্লিপ্পিং

ডমেইন ট্রেডিং এর ন্যায় ওয়েবসাইট ফ্লিপ্পিং ও অনলাইন বিজনেসের অনেক বড় একটি মাধ্যম। আপনি এখানে ডমেইন নিয়ে ডিল করবেন না ঠিকই কিন্তু ওয়েবসাইট নিয়ে ডিল করবেন। এখানে আপনার ওয়েবসাইট ক্রিয়েট করতে হবে এবং ৩-৬ মাস তার বেশি এটির উপর কাজ করতে হবে।  যার ফলে আপনি এই মাধ্যম থেকে অনলাইন আয় করতে পারবেন।  আপনার দুই থেকে তিন মাস কাজ করার পর আপনি এই সাইটটি ফ্লিপ্পা অথবা অন্য প্লাটফর্মে সেল করতে পারেন। আপনার ওয়েবসাইট এর উপর ডিপেন্ড করে আপনি ১৫-২০ গুন বেশি লাভ করতে পারেন।

১৫) প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করেও আপনি আয় করতে পারেন

প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করে আয়

আপনি যদি কোন বিশেষ বিষয়ের উপর জ্ঞান অর্জন করে এবং পাশা পাশি অন্যকে শিখাতে পছন্দ করেন তাহলে আপনি অনলাইনে এই বিজিনেস শুরু করতে পারেন। আপনি চাইলে ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ এর কোর্স করাতে পারেন অথবা কম্পিউটারের বিশেষ কোর্স করিয়ে অনলাইন আয় করতে পারেন লক্ষ্য পরিমান অর্থ। আপনি যদি ডক্টর হোন তাহলেও আপনি অর্জন করতে পারেন অর্থ। তবে এই খাতে চাহিদা অনুযায়ী সকল ক্ষেত্রেই বিপুল পরিমাণে অর্থ অনলাইন আয় করতে পারেন। আপনি আপনার বিজনেস বিভিন্ন উপায়ে প্রমট করতে পারেন। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেও অথবা আপনার বিষয়ের উপর ওয়েবসাইট ক্রিয়েট করে আপনার বিজনেস জনসম্মুখে প্রদান করতে পারেন।

১৬) স্টক এন্ড ফরেক্স ট্রেডিং

স্টক এন্ড ফরেক্স ট্রেডিং

 

স্টক এন্ড ফরেক্স ট্রেডিং অনেক লাভজনক অনলাইন বিজনেস তাদের জন্য যাদের মার্কেটিং এ অনেক ভালো আইডিয়ে আছে। আপনি এই বিষয়ে অনলাইনে অনেক ফ্রী এবং ভালো সোর্স পাবেন যা দ্বারা আপনি ট্রেইন্ড হয়ে লক্ষ্যে পৌছাতে পারেন। এই সকল বিষয় বিস্তারিত জানতে নিউজপেপারের ও সহায়তা নিতে পারেন কিছু কিছু টিভি চ্যানেল ও এইসকল বার্তা প্রচার করে যেমন CNBC সিএনবিসি এসকল মাধ্যমে আপনি আরো এক্সপার্ট হতে পারবেন। প্রয়োজনীয় জ্ঞান না থাকলে এই ফিল্ড আপনার জন্য অনেক রিস্কি হতে পারে।

১৭) অনলাইনে ফটো বিক্রির মাধ্যমে বা ফটোগ্রাফি করেও প্রচুর আয় সম্ভব

অনলাইনে ফটো বিক্রি

এই পদ্ধতি আপনি স্মার্টফোন দিয়ে কাজ করতে পারেন। আপনি ছবি তোলার আগ্রহি হলে ছবি তুলেও বেশ কিছু অনলাইন আয় করতে পারেন। আপনি প্রকৃতি, খ্যাত যায়গা সমূহ, মানুষের, খাবারের আয়টেমের ছবি তোলার মাধ্যমে এগুলো বিক্রয় করে অনলাইন আয় করতে পারেন। এখানে অনেক সাইট পাবেন যারা আপনার ফটো কিনতে আগ্রহি এগুলো হলো –  Shutterstock, Fotolia, , iStockPhoto, Photobucket এখানে আপনি আপানার ফটো সাবমিট করতে পারবেন। যখন কোন কাস্টমার আপনার ফটো কিনতে আগ্রহি হবে তারা আপনার নির্ধারিত মূল্যে ফটো কিনে নিবে। আপনি একটা ফটো অনেক বার বিক্রির মাধ্যমেও অনলাইন আয় করতে পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here