C++ প্রতিদিন(দিন – ১) : সি++ প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ পরিচিতি

0
47

প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ

প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ হলো এমন কোন ভাষা যেটা দিয়ে কম্পিউটার বুঝতে পারে এমন কম্পিউটার প্রোগ্রাম লিখা যায় যা কম্পিউটার কে কোন কাজ করার জন্য নির্দেশ করতে পারে |

কম্পিউটার প্রোগ্রাম অনেকটা কবিতা বা গল্প লিখার মত শুধু পার্থক্য হচ্ছে কম্পিউটার প্রোগ্রাম লিখার সময় প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজের বাক্যরণ বা নিয়মগুলো যথাযথভাবে মানতে হয়, কোনো রকম উল্টাপাল্টা হলে কিন্তু বোকা কম্পিউটার কিছুই বুঝতে পারবে না| কম্পিউটার প্রোগ্রাম লেখার জন্য অনেক প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ আছে যেমন সি, সি++, জাভা, পাইথন এবং আরো অনেক| আমার এ লেখার উদ্দেশ্য হলো সি++ প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে যতটা পারা যায় ধারণা দেয়া |

সি++ প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ

সি++ হলো একটি আধুনিক, সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ| সি প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজের সকল ক্ষমতা ব্যবহার করে এবং নতুন অনেক ফীচার যুক্ত করে সি++ কে অনেক ব্যবহার উপযুগী ও বাস্তবমুখী প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ হিসেবে তৈরী করা হয়েছে | সেকারণে সি++ কে  সি প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজের নতুন সংস্করণ বললেও কম বলা হবে না |

সি++ এর বৈশিষ্টসমূহ:-

  • সহজ

সি++ এ প্রোগ্রাম লেখা এবং অন্যের লেখা প্রোগ্রাম বোঝা অনেক সহজ |

  • দ্রুত

সি এর উত্তরসুরি হওয়ায় সি++  এ লেখা প্রোগ্রামগুলো অন্যান্য প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজের তুলনায় অনেক দ্রুত রান করে | এই কারণে অনেক বড় ও জটিল সফটওয়্যারগুলোতে দ্রুত পারফরমেন্স পাওয়ার জন্য সি++ ব্যবহার করা হয় | যেমন অপারেটিং সিস্টেম , গেম , কম্পাইলার ইত্যাদি |

  • অবজেক্ট অরিয়েন্টে প্রোগ্রামিং লাঙ্গুয়েজ

সি++ এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে ইটা অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড লাঙ্গুয়েজ যেটা অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং এর ধারণাগুলো অনুসরণ করে|

  • কম্পাইলার ভিত্তিক লাঙ্গুয়েজ

সি++ প্রোগ্রাম কম্পিউটারে চালাতে গেলে আগে থেকে কম্পাইল করে নিতে হয়| কম্পাইল করা ছাড়া সি++ প্রোগ্রাম চালানো যায় না |

  • সিনটেক্স বা শব্দবিন্যাস ভিত্তিক এবং কেস সেনসেটিভ লাঙ্গুয়েজ

সি++ সিনটেক্সগুলো লাঙ্গুয়েজের নিয়মানুযায়ী কড়াকড়ি ভাবে অনুসরণ করতে হয় এবং অক্ষরগুলো কেস অনুযায়ী আলাদা আলাদা অর্থ প্রকাশ করে |

সি++ প্রোগ্রাম কিভাবে কম্পিউটারে চালাব ?

কম্পিউটারের একটি বড় সমস্যা হচ্ছে কম্পিউটার জিরো আর ওয়ান ছাড়া কিছু বোঝে না তাহলে আমাদের লেখা প্রোগ্রাম কিভাবে বুঝবে| আমাদের লেখা প্রোগ্রাম কম্পিউটারকে বুঝানোর জন্য একটা রাস্তা আছে সেটা হলো কোনো দোভাষী মানে কম্পাইলার বা ইন্টারপ্রেটার ব্যবহার করা যেটা কোন প্রোগ্রাম কম্পিউটার বুঝে এরকম একটা ফরমেটে রূপান্তর করতে পারে | এত কিছুর কি দরকার সরাসরি বাইনারিতে  প্রোগ্রাম লিখলেই তো হয়, হ্যা হয় কিন্তু সমস্যা হচ্ছে আপনার লিখা প্রোগ্রাম কম্পিউটার আর আপনিই বুঝবেন হয়ত আর কেউ বুঝবে না | তাহলে বুঝতেই পারছি সি++ প্রোগ্রাম রান করতে গেলে একটা কম্পাইলার অন্তত লাগবে |

যেকোন অপারেটিং সিস্টেমে সি++ কম্পাইলার ব্যবহার করে কমান্ডলাইন থেকে প্রোগ্রাম রান করা যায় অথবা IDE(Integrated Development Environment) দিয়ে খুব সহজেই সি++ প্রোগ্রামে লিখা ও কম্পাইল করে রান করা যায় | নিঃসন্দেহে আমি IDE ব্যবহার করা সমর্থন করি কারণ যেকোনো প্রোগ্রাম লেখার জন্য IDE অনেক ধরনের সুবিধা প্রদান করে | IDE ব্যবহার করার সুবিধাগুলো

  • সি++ কম্পাইলার আগে থেকেই  যুক্ত করা  থাকে তাই আলাদাভাবে ইনস্টল করার দরকার হয় না
  • প্রোগ্রামে কোনো ধরনের প্রোগ্রামিং ভুল থাকলে বলে দেয়া এবং প্রয়োজনে  ভুল সংশোধনেও সাহায্য করে
  • প্রোগ্রাম বিশ্লেষণ করতে সাহায্য করে
  • কম সময়ে বড় প্রোগ্রাম বা প্রজেক্ট ম্যানেজ করা যায়

এছাড়াও সিনটেক্স হাইলাইট, কোড সাজেসন করা সহ আরো অনেক সুবিধা রয়েছে | সি++ এর জন্য শুরুর দিকে IDE হিসেবে Code::Blocks ব্যবহার করা ভালো কারণ এটা অন্যান্য IDE এর চেয়ে লাইট, ব্যবহার করা বেশ সহজ এবং বেশ দ্রুত কোড কম্পাইল করতে পারে | তবে সি++ এর জন্য সবচেয়ে ভালো এবং বেশি সুবিধা সম্বলিত কোনো IDE ব্যবহার করতে চাইলে নিঃসন্দেহে Visual Studio ব্যবহার করতে পারেন |

তাহলে IDE install করে ফেলুন কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট করুন অথবা  অবশ্যই গুগলের সাহায্য নিন | এর পরের দিন দেখব কিভাবে সি++ প্রোগ্রাম রান করতে পারি |

শুভ কামনা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here